শুক্রবার, ৬ মে, ২০১১

প্রকাশনায় আদিবাসী জীবন সংস্কৃতি বিষয়ক গোলটেবিল বৈঠক

পাঠ্যপুস্তকসহ বিভিন্ন প্রকাশনায় ইতিবাচক তথ্য উপস্থাপনের আহবান
পাঠ্যপুস্তকের ত্রুটিগুলো সংশোধনে সরকার শীঘ্রই উদ্যোগ নেবে- ডা: মো: আফছারুল আমীন এমপি

সরকার আদিবাসীদের অধিকার প্রতিষ্ঠায় আন্তরিক- দীপংকর তালুকদার এমপি


ঢাকা, ২৭ এপ্রিল ২০১১।
রাজধানীর জাতীয় প্রেস ক্লাবের ভিআইপি লাউণ্জে অনুষ্ঠিত ‘প্রকাশনায় আদিবাসী জীবন সংস্কৃতি : আমাদের দৃষ্টিভঙ্গি’ শীর্ষক গোলটেবিল বৈঠকে পাঠ্যপুস্তকসহ বিভিন্ন প্রকাশনায় আদিবাসীদের জীবন সংস্কৃতির বিষয়ে সঠিক তথ্য উপস্থাপন করার জন্য বক্তারা আহবান জানান। ডেভেলপমেন্ট ইনিসিয়েটিভ ফর ইনক্লুসিভ পিপল (দীপ), শিসউক ও জাবারাং কল্যাণ সমিতির উদ্যোগে আয়োজিত বৈঠকে প্রধান অতিথি ছিলেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী ডা: মো: আফছারুল আমীন এমপি, বিশেষ অতিথি ছিলেন পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী দীপংকর তালুকদার এমপি, আইএলও‘র ডেপুটি কান্ট্রি ডারেক্টর গগণ রাজভান্ডারি প্রমুখ।

গোল টেবিল বৈঠকে প্রাথমিক স্তুরের জাতীয় পাঠ্যপুস্তকসহ বিভিন্ন প্রকাশনায় দেশের আদিবাসীদের সম্পর্কে বিভিন্ন অসংগতিপূর্ণ তথ্য ও ছবি সংশোধনের প্রাসংগিকতা নিয়ে গবেষণাকর্মের তথ্য-উপাত্ত তুলে ধরেন দীপ-এর নির্বাহী পরিচালক চৌধুরী আতাউর রহমান রানা।

জাবারাং কল্যাণ সমিতির নির্বাহী পরিচালক মথুরা বিকাশ ত্রিপুরার স্বাগত বক্তৃতায় সূচিত এই গোলটেবিল বৈঠকের সঞ্চালক ছিলেন দৈনিক ভোরের কাগজ-এর সম্পাদক শ্যামল দত্ত এবং সভাপতিত্ব করেন দীপ-এর সভাপতি দেবী প্রসাদ মজুমদার।

বৈঠকে নির্ধারিত আলোচক হিসেবে বিশ্লেষণমূলক বিভিন্ন তথ্য তুলে ধরেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের অধ্যাপক ড। শেখ আব্দুস সালাম, পার্বত্য চট্টগ্রাম আঞ্চলিক পরিষদের সদস্য গৌতম কুমার চাকমা, বাংলাদেশ আদিবাসী ফোরামের সাংগঠনিক সম্পাদক শক্তিপদ ত্রিপুরা, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের নৃবিজ্ঞান বিভাগের প্রভাষক জোবাইদা নাসরিন, ককবরক রিসার্চ ইনস্টিটিউট-এর সভাপতি প্রশান্ত কুমার ত্রিপুরা, বাংলাদেশ মণিপুরি সাহিত্য সংসদ-এর সভাপতি এ কে শেরাম, আউস-এর নির্বাহী পরিচালক ভগবত টুডু, খাসি সোশ্যাল কাউন্সিল-এর সভাপতি জিডিসন প্রধান সুছিয়াং প্রমুখ। অনুষ্ঠান ঘোষণা করেন দীপ-এর সংগঠক আমিনুল ইসলাম বাবু। নির্ধারিত আলোচকদের আলোচনা শেষে মুক্ত আলোচনাপর্বে অংশগ্রহণ করেন অভিলাষ ত্রিপুরা, এডভোকেট প্রমিলা টুডু, অমর চাকমা প্রমুখ।

বৈঠকের বক্তারা দেশের পাঠ্যবইয়ে আদিবাসী জনগোষ্ঠী সম্পর্কে নেতিবাচক যেসব বিষয় সন্নিবেশ করা রয়েছে, তা সংশোধন করার জন্য এবং দেশের আদিবাসীদেরকে ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী বা অন্যকোন নামে নয় বরং ‘আদিবাসী’ হিসেবেই সাংবিধানিক স্বীকৃতি দেওয়ার জন্য সরকারের প্রতি আবেদন জানান। বক্তারা জাতীয় পাঠ্যপুস্তক রচনা ও সম্পাদনায় সম্পৃক্ত প্রবন্ধকার, গবেষক ও লেখকবৃন্দ ছাড়াও যাঁরা আদিবাসী জীবন-জীবিকা ও সংস্কৃতি সম্পর্কে লেখালেখি করেন, তাঁদের সকলকে আরও সংবেদনশীল হওয়ার জন্য অনুরোধ জানান। জাতীয় ঐক্য ও দেশের সকল জাতিগোষ্ঠীর মধ্যে সম্প্রীতি বজায় রাখার স্বার্থে কোন জনগোষ্ঠী সম্পর্কে কোনরূপ নেতিবাচক তথ্য পাঠ্যপুস্তকসহ বিভিন্ন প্রকাশনায় উপস্থাপন না করার জন্য আহবান জানানো হয়। বক্তারা জাতীয় পাঠ্যবই রচনা প্রক্রিয়ায় আদিবাসী বিশেষজ্ঞদেরকে সম্পৃক্ত করার জন্য মন্ত্রণালয় ও জাতীয় পাঠ্যসূচি ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ডকে আহবান জানান।

গোলটেবিল বৈঠকে দেশের প্রতিষ্ঠিত লেখক, গবেষক, সংবাদকর্মীসহ আদিবাসী বিভিন্ন জাতিগোষ্ঠীর সামাজিক ব্যক্তিত্ব, বিশিষ্ট নাগরিক এবং লেখক-গবেষক অংশ নেন। বৈঠক আয়োজনে সহযোগিতা করেছে আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থা (আইএলও) ও পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়।

বৃহষ্পতিবার, ৫ মে, ২০১১

খাগড়াছড়িতে শিশুদের মাঝে স্কুল পোশাক বিতরণ

সাড়ে চার হাজার শিশু পেল টেসকো’র দেওয়া নতুন ড্রেস

খাগড়াছড়ির তিন উপজেলার ৭৬ টি প্রাক-প্রাথমিক ও প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সাড়ে চার হাজার শিশুকে স্কুল ইউনিফর্ম দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান টেসকো। সেভ দি চিলড্রেন-ইউকে এর মাধ্যমে পাওয়া এসব ইউনিফর্ম বিতরণের কাজটি করেছে উন্নয়ন সংস্থা জাবারাং কল্যাণ সমিতি।

এ উপলক্ষে গতকাল বুধবার গাছবান সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি অমিতাভ বৈষ্ণব এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত ইউনিফর্ম বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন পার্বত্য জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা। বিশেষ অতিথি ছিলেন খাগড়াছড়ি সদর উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা কৃষ্ণ লাল দেবনাথ।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা বলেন- মানসম্মত শিক্ষা নিশ্চিত করতে শিক্ষক, অভিভাবক, ছাত্র-ছাত্রী ও স্কুল ব্যাবস্থাপনা কমিটিগুলোর মধ্যে আন্তঃসমন্বয় জোরালো ও অর্থবহ হওয়া দরকার। এছাড়া বিদ্যালয় ক্যাচম্যান্ট এলাকার অধিবাসীদের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের প্রয়োজনীয়তার কথাও স্বীকার করেন। তিনি শিক্ষকদের বেতন ও সুবিধাদির অপর্যাপ্ততার সত্যতা মেনে নিয়েই তাঁদের এ ত্যাগী মানসিকতাকে অকপটে শ্রদ্ধা জানিয়েছেন। শিক্ষকদের নিকট কোমলমতি শিশুদের সুশিক্ষায় শিক্ষিত করে দেশের আদর্শ নাগরিকে পরিণত করে বর্তমান সরকারের ভিশন ২০২১ ও স্বপ্নের ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার প্রত্যয়কে সহযোগিতার আহবান জানান। এক প্রসঙ্গে তিনি নিজেদের ক্ষুদ্র্র নৃ-গোষ্ঠী নয় আদিবাসী হিসেবেই পরিচিতি পেতে স্বাচ্ছন্দ বোধ করেন বলে জানান।

অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন গাছবান সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সত্য প্রকাশ ত্রিপুরা, পল্টনজয় পাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সুগম ত্রিপুরা, ভাইবোনছড়ামূখ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি দয়া শান্তি চাকমা, প্রকল্প সমন্বয়কারী বিনোদন ত্রিপুরা, অভিভাবক প্রতিনিধি নীতিবরন ত্রিপুরা ও জাবারাং কর্মকর্তা গীতিকা ত্রিপুরা।

উল্লেখ্য, এ কার্যক্রমের অংশ হিসেবে সদর উপজেলায় প্রাক-প্রাথমিক পর্যায়ে মোট ২১৮ জন বালক-বালিকা ও প্রাথমিক পর্যায়ে মোট ১২৬১ জন বালক-বালিকার মাঝে ইউনিফর্ম বিতরণ করা হয়। এছাড়াও গত ২ মে পানছড়ি পূজগাংমুখ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ও ৩ মে বাবুছড়া আদর্শ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে প্রকল্প এলাকার নির্বাচিত বিদ্যালয়ের দরিদ্র ও সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের মাঝে ড্রেস বিতরণ করা হয়েছে। এ নিয়ে সদর, পানছড়ি ও দীঘিনালা ৩টি উপজেলার মোট ৩৮টি প্রাক-প্রাথমিক ও ৩৮টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রাক-প্রাথমিক পর্যায়ে ৪৮২ জন বালিকা, ৪৮৪ জন বালক মিলে মোট ৯৬৬ জন এবং ২২০৩ জন বালিকা, ২৪৮১ জন বালক মিলে মোট ৪৬৮৪ জন প্রাথমিক পর্যায়ের শিশুর মধ্যে এ ইউনিফর্ম বিতরণ করা হলো।
তথ্যসূত্র: http://www.chtnews.net/

সোমবার, ১১ এপ্রিল, ২০১১

শুভ বৈসু সাংগ্রাই বিঝু

Happy Bwisu Sangrai Bijhu


নতুন বছর বয়ে আনুক সবার জন্য

অনাবিল সুখ


সাফল্য


পার্বত্যউন্নয়নবার্তা পরিবার

শনিবার, ৯ এপ্রিল, ২০১১

তামাকের চেয়ে ইক্ষুচাষে ৩ গুণ বেশি লাভ


বান্দরবানের ইক্ষুচাষিদের মুখে সাফল্যের হাসি

ইক্ষু চাষ করে সাফল্যের মুখ দেখতে শুরু করেছেন বান্দরবানের কৃষকরা। ইক্ষুর সঙ্গে সাথী ফসলের চাষ করে একদিনে যেমন এলাকার খাদ্যশস্যের চাহিদা পূরণ হচ্ছে, অন্যদিকে ক্ষতিকর তামাক চাষ থেকে বেরিয়ে আসার পথও সুগম হচ্ছে। আজ বুধবার বান্দরবান সদরের চড়ুইপাড়ায় উন্নত পদ্ধতিতে ইক্ষু, গুড় উৎপাদন ও সাথী ফসল চাষের কলাকৌশল বিষয়ক একটি প্রশিক্ষণ কর্মসূচির উদ্বোধনের সময় জেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে আসা কৃষকরা জানালেন এসব কথা।

তাঁরা জানান, পার্বত্য এলাকার কৃষকরা তামাক চাষের দিকে বেশি ঝুঁকে পড়ছে কারণ তামাক চাষের জন্যে অগ্রিম টাকা পাওয়া যায়। উৎপাদিত ফসল বিক্রি করতেও কোনো জটিলতায় পড়তে হয়না। অন্যান্য ফসলের চাষ করলে অগ্রিম আর্থিক সহায়তা পাওয়া যায়না এবং বিক্রি করার কাজটা নিজেদেরকেই করতে হয়।

বান্দরবান সদরের চেমী ডলু পাড়ার কৃষক করিমুল্লাহ জানান, এ বছর তিনি ৪০ শতক জমিতে আখ চাষ করেছেন। সাথী ফসল হিসেবে করেছেন শিম। প্রতি কানি জমি থেকে আখ ও সাথী ফসল বাবদ তাঁর লাভ হয়েছে প্রায় ৩৫ হাজার টাকা, আর তামাক চাষ করে প্রতি কানি জমি থেকে তাঁর লাভ হয়েছে মাত্র ১০ হাজার টাকা।

সদর উপজেলার রাজবিলার কৃষক চাইহ্লাপ্রু চৌধুরী জানান, গত বছর চায়না ও ভিয়েতনাম প্রজাতির আখ চাষে ৭ হাজার টাকা খরচ করে তিনি আয় করেছেন প্রায় ৫৬ হাজার টাকা। তামাক কোম্পানী যেরকম চাষের আগেই বীজ, সারসহ অন্যান্য কাজের জন্যে টাকা দেয়, সেরকম সহায়তা পেলে এলাকার কৃষকরা আরো বেশি আখ চাষে উৎসাহিত হবেন বলে আশা করেন তিনি।
সুয়ালক মাঝের পাড়ার কৃষক অংক্যউ মারমা ২০ শতক জমিতে আখ চাষ করেছেন গত বছর। সেখান থেকে খুচরা ও পাইকারি বিক্রি বাবদ তাঁর আয় হয়েছে প্রায় ২৫ হাজার টাকা।

বাংলাদেশ ইক্ষু গবেষণা ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক ড. গোপাল চন্দ্র পাল জানান, বর্তমান সরকার একটি কৃষিবান্ধব সরকার। এ সরকার ক্ষমতায় আসার পর ব্যয়বহুল সারগুলোর দাম কমিয়ে আনা হয়েছে। যার ফলে কৃষকরা সুষম পদ্ধতিতে সার ব্যবহার করতে পারছেন। বাংলাদেশের প্রতিজন মানুষ গড়ে বছরে ১৩ কেজি চিনি ও গুড় খায়। সে হিসেবে ১৪ কোটি মানুষের জন্যে প্রতি বছর প্রায় ১৮ লাখ টন চিনি ও গুড়ের চাহিদা রয়েছে। কিন্তু দেশে উৎপাদন হয় মাত্র ৬ লাখ টন। বাকি ১২ লাখ টন চিনি ও গুড়ের ঘাটতি রয়েছে। সুতরাং আখ চাষ একটি সম্ভাবনাময় সেক্টর।

তিনি আরো জানান, পার্বত্য মন্ত্রণালয়ের কাছ থেকে পাওয়া থোক বরাদ্দের টাকা দিয়ে পার্বত্য চট্টগ্রামে ইক্ষু চাষ সমপ্রসারণের জন্যে পাইলট প্রকল্পটির কাজ শুরু করা হয়েছিল। এ বছরের জুন মাসে সেটির মেয়াদ শেষ হয়ে যাবে। প্রকল্প শেষে উদ্বৃত অর্থ দিয়ে আরো প্রায় ছয় মাস প্রকল্পের কাজ চালানো সম্ভব। সামান্য কিছু বরাদ্দ পেলে প্রকল্পটি এক বছর চালিয়ে নেয়া যাবে এবং তাঁরা সরকারের সাথে সে বিষয়ে যোগাযোগ রক্ষা করে চলেছেন। তাছাড়া প্রকল্পটিকে কৃষি মন্ত্রণালয়ের অধীনে রাজস্ব খাতে নিয়ে যাবার জন্যেও তাঁরা চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। এতে করে সেটি স্থায়ীভাবে চালু থাকবে।

তিনি উল্লেখ করেন, পার্বত্য চট্টগ্রাম বাংলাদেশের ৩০টি কৃষি পরিবেশ অঞ্চলের মধ্যে একটি। এখানে ব্যাপকভাবে আখ চাষ করলে প্রস্তুতকৃত চিনি ও গুড় দেশের চাহিদা মিটিয়ে বিদেশেও রপ্তানি করা সম্ভব হবে।

অনুষ্ঠানে পাইলট প্রকল্পের পরিচালক বিষ্ণুপদ পোদ্দার, কমলা প্রকল্পের ড. বিমল চন্দ্র সরকার, প্রকল্পের বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ও অফিস ইনচার্জ ক্যছেনসহ বিভিন্ন স্থান থেকে আসা আখ চাষীরা উপস্থিত ছিলেন।

তথ্যসূত্র: http://chtupdate.blogspot.com/

মঙ্গলবার, ৫ এপ্রিল, ২০১১

ওয়াইল্ড লাইফ ট্রাস্টের জরিপ

পার্বত্য অঞ্চল থেকে হারিয়ে গেছে ২ প্রাণী, বিলুপ্তির পথে ৯

এক সময় বন্যপ্রানীর নিরাপদ আবাসস্থল তিন পার্বত্য জেলার সবুজ পাহাড় হলেও বর্তমানে মানুষের অবাধ বিচরন ও বন ধ্বংস করার ফলে পাহাড় থেকে হারিয়ে যাচ্ছে বিভিন্ন প্রজাতির প্রানী আর বিষয়টি উঠে এসেছে ওয়ার্ল্ড লাইফ ট্রাষ্ট অফ বাংলাদেশ (ডাব্লিউ টি বি) এর জরিপে।

বন ও বন্যপ্রানী নিয়ে কাজ করা সংস্থাটির সূত্র জানান, গত বছরের ২রা ফেব্রুয়ারি বন ও বন্যপ্রানী নিয়ে বান্দরবান, রাঙ্গামাটি ও খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলায় তাদের জরিপ কাজ শুরু করা হয়। তিন পার্বত্য জেলার সংরক্ষিত বনাঞ্চলের পাশাপাশি অন্য বনগুলোতে সংস্থাটির ১২ জন স্বেচ্ছাসেবক বিভিন্ন প্রানীর সন্ধানে চষে বেড়ায়। স্থানীয় বন বিভাগের ম্যাপ এর উপর ভিত্তি করে তারা প্রাথমিক জরিপ শেষ করে। পাহাড়ে বিভিন্ন বন্য প্রানীর পায়ের ছাপ দেখে সনাক্ত করা হয় তাদের উপস্থিতি।

এ জরিপে বেরিয়ে আসে তিন পার্বত্য জেলা থেকে গন্ডার, বন গরু হারিয়ে গেছে। অন্যদিকে বিলুপ্তির শেষ প্রান্তে রাম ছাগল, চিতা বাঘ, লাম চিতা বাঘ, বন গয়াল, বার্মিজ অজগর এবং রেটিকুলেটেড অজগর, সাম্বা হরিন, রাজ ধনেশ, উল্লুক।

আগামী পাঁচ বছর পর এ ৯টি প্রানী হারিয়ে যাবার তালিকায় যোগ হবে বলে মনে করছে সংশ্লিষ্টরা। সংস্থাটির সূত্র আরো জানান, রাঙ্গামাটি জেলার কাচালং রিজার্ভ ফরেষ্ট এবং বান্দরবান পার্বত্য জেলার সাঙ্গু ও লামা উপজেলার মাতামুহুরি রিজার্ভ ফরেষ্ট, এই দুই রিজার্ভ ফরেষ্টের উপর ভিত্তি করে আরো দুই মাস তাদের জরিপ চালানো হবে। পার্বত্য জেলার বন ও বনের প্রানীকুল রক্ষায় জরিপের চূড়ান্ত রিপোর্ট এর প্রস্তাবনা সরকারের সংশ্লিষ্টদের কাছে তুলে ধরা হবে।

এই ব্যাপারে ওয়ার্ল্ড লাইফ ট্রাষ্ট বাংলাদেশ এর এসেস্ট রিচার্জ কো-অর্ডিনেটর সুপ্রিয় চাকমা বলেন, পাহাড়ের বনজ সম্পদ ও জীববৈচিত্র রক্ষায় দেশের রাজনৈতিক সচেতনতার পাশাপাশি স্থানীয় হেডম্যান ও কারবারিদের সচেতন হতে হবে।

বন্য প্রানী হারিয়ে যাবার পেছনে প্রধান কারন হিসাবে জরিপকারীরা বন্যপ্রানীর আবাসস্থল ধ্বংস, বনগুলো খন্ড খন্ড হয়ে যাওয়া, বন্যপ্রানী হত্যা, বাণিজ্যিক ভাবে বন আহরন, ব্যাপক ভাবে অপরিকল্পিত জুম চাষাবাদ, দ্রুত জনসংখ্যা বৃদ্ধি, তামাক চাষাবাদকে চিহ্নিত করেছে।

বান্দরবানের লামা বিভাগীয় বন কর্মকর্তা বলেন, বান্দরবানের বাইশারী, ঈদগড় ও আলিক্ষ্যং মৌজা নিয়ে বন্য প্রানীর অভয়ারন্য গড়ে তোলার জন্য একটি প্রকল্প নেওয়া হচ্ছে। তিনি আরো জানান, বন রক্ষায় উক্ত অভয়ারন্যে মানুষের বিচরন সম্পূর্ন নিষিদ্ধ করা হবে। অন্যদিকে জেলার রোয়াংছড়ি উপজেলার তারাছা এলাকায় ইকোপার্ক গড়ে তোলার উদ্যোগ গ্রহন করেছে বন বিভাগ।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয় এক পরিবেশবিদ বলেন, পাহাড়ের বনজ সম্পদ ও জীব বৈচিত্র রক্ষায় সরকারের কঠোর সিদ্ধান্তের পাশাপাশি তিন সার্কেলের রাজাদের মাধ্যমে স্থানীয় হেডম্যান ও কারবারিদের সচেতন করতে হবে। উল্লেখ্য, রাঙ্গামাটিতে ৬ কোটি ৩০ লক্ষ ৬৬ হাজার ৫৪৩ একর, খাগড়াছড়িতে ৩ লক্ষ ৪৮ হাজার ৮৫৩ এবং বান্দরবানে ৯৯ হাজার ৩৩০ হেক্টর সরকারী ও অশ্রেণীভুক্ত ১ লক্ষ ৯৪ হাজার ২০২ হেক্টর বন কাগজে কলমে থাকলেও সেগুলো এখন হয়ে পড়েছে বৃক্ষ ও বনপ্রানী শূণ্য।

তথ্যসূত্র: http://chtupdate.blogspot.com/

বান্দরবানের পাহাড়ি ঝর্না থেকে অবাধে পাথর উত্তোলন

৪ মন্ত্রণালয়ের সচিবসহ স্থানীয় প্রশাসনের কর্মকর্তাদের নোটিশ দিয়েছে বেলা


বান্দরবানের পাহাড়ি এলাকা থেকে অবাধে পাথর উত্তোলন বন্ধ করার জন্যে ৪ মন্ত্রণালয়ের সচিবসহ স্থানীয় প্রশাসনের কর্মকর্তা এবং ব্যবসায়ীদের নোটিশ দিয়েছে বাংলাদেশ পরিবেশ আইনজীবি সমিতি (বেলা)। পরিবেশ ধ্বংস করে পাথর উত্তোলনকারীদের বিরুদ্ধে কী ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে তা আগামী ১৫ দিনের মধ্যে বেলাকে জানানোর কথা উল্লেখ করা হয়েছে নোটিশে। বেলার আইনজীবি এ্যাডভোকেট মোঃ ইকবাল কবির বৃহষ্পতিবার এই নোটিশ পাঠিয়েছেন।

যাঁদের নোটিশ দেয়া হয়েছে: বন ও পরিবেশ মন্ত্রণালয়, ভূমি মন্ত্রণালয়, জ্বালানী ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয় এবং স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের সচিব। পরিবেশ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক, চট্টগ্রামের বিভাগীয় কমিশনার, বান্দরবানের জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার, বান্দরবানের রুমা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, পরিবেশ অধিদপ্তর চট্টগ্রামের পরিচালক ও পাথর ব্যবসায়ী ওসমান গনি সওদাগরকে পাথর উত্তোলন বন্ধ করার জন্যে উকিল নোটিশ দেয়া হয়েছে।

বেলা'র একটি সূত্র জানায়, বান্দরবানের রুমা উপজেলার লাংচা পাড়া, নামদুই পাড়া, বেথেল পাড়া, মিনঝিরি পাড়া ও পলি পাড়া এলাকায় একটি চক্র দীর্ঘদিন ধরে অবাধে পাহাড়ি ঝর্না থেকে পাথর উত্তোলন করে আসছে। পাথর সংগ্রহ ও পরিবহণের জন্যে ওইসব এলাকায় পাহাড় কেটে অনেক রাস্তাও নির্মাণ করা হয়েছে। এতে পাহাড়ি ঝর্নাগুলো ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে এবং ধীরে ধীরে পানির উৎস নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। পানির উৎস নষ্ট হয়ে গেলে এলাকায় ভয়াবহ পরিবেশ বিপর্যয় ঘটবে। হুমকির মুখে পড়বে আদিবাসীদের জীবনযাত্রা। নোটিশে উল্লেখ করা হয়, মোঃ ওসমান গনি সওদাগর নামের এক ব্যবসায়ী প্রশাসনের অনুমতি না নিয়েই উল্লেখিত এলাকাগুলো থেকে পাথর উত্তোলন করছিলেন। স্থানীয় অধিবাসীরা বিষয়টি বেলাকে বিষয়টি লিখিতভাবে জানিয়েছে।

আইনজীবি ইকবাল কবির জানিয়েছেন, সংবাদমাধ্যম এবং স্থানীয় অধিবাসীদের কাছ থেকে তথ্য পেয়ে তাঁরা এ বিষয়ে উদ্যোগ নিয়েছেন। নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে নোটিশের জবাব না দিলে সংশ্লিষ্টদের ব্যাপারে তাঁরা আইনের আশ্রয় নেবেন। বৃহস্পতিবার পাঠানো উকিল নোটিশটি এখনো পাননি বলে জানিয়েছেন বান্দরবানের জেলা প্রশসাক মিজানুর রহমান। রুমায় কাউকে পাথর উত্তোলন করার জন্যে অনুমতিও দেয়া হয়নি বলে জানান তিনি। এর আগে স্থানীয় লোকজনের অভিযোগের প্রেক্ষিতে সেখানে অভিযান চালানো হয়েছিল।

তথ্যসূত্র: http://chtupdate.blogspot.com/

সোমবার, ৪ এপ্রিল, ২০১১

খাগড়াছড়িতে ম্যালেরিয়ার প্রাদুর্ভাব

৫ বছরে মারা গেছেন ২৫৩ জন, আক্রান্ত ৯৪ হাজার

খাগড়াছড়িতে গত ৫ বছরে প্রাণঘাতী রোগ ম্যালেরিয়ায় মারা গত ৫ বছরে মারা গেছেন ২৫৩ জন। আক্রান্ত হয়েছেন প্রায় ৯৪ হাজার লোক। খাগড়াছড়ি সিভিল সার্জনের কার্যালয়ে গত ২৮ মার্চ সোমবার আয়োজিত ম্যালেরিয়া বিষয়ক এক এ্যাডভোকেসী সভায় এ তথ্য জানানো হয়। সভায় আরো জানানো হয়, তিন পার্বত্য জেলা ম্যালেরিয়া ঝুঁকিপূর্ণ অঞ্চল হিসেবে চিহ্নিত। গ্লোবাল ফান্ডের সহযোগিতায় বাংলাদেশের ১৩টি ম্যালেরিয়াপ্রবণ অঞ্চলে সরকারের পাশাপাশি বিভিন্ন সাহায্যকারী সংস্থা তাদের কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে। সচেতনতা সৃষ্টি, সঠিক রোগ নিরূপণ আর যথাযথ চিকিৎসার মাধ্যমে ২০১৫ সালের মধ্যে আক্রান্ত ও মারা যাবার হার অর্ধেকে কমিয়ে আনার লক্ষ্যে কাজ চলছে। সভায় উপস্থাপিত তথ্যমতে, ম্যালেরিয়ায় খাগড়াছড়ি জেলায় ২০১০ সালে ১৩জন, ২০০৯ সালে ১২ জন, ২০০৮ সালে ৫৫ জন, ২০০৭ সালে ৯৯ জন এবং ২০০৬ সালে ৭৪ জন প্রাণ হারিয়েছেন। এ বছর বর্ষা মৌসুমে ম্যালেরিয়ার প্রাদুর্ভাব আরো বাড়তে পারে বলে জানিয়ে জনগণকে সতর্ক থাকতে পরামর্শ দেয়া হয়। সিভিল সার্জন ডা. জালাল উদ্দিনের সভাপতিত্বে এ সভায় চিকিৎসক, সরকারী কর্মকর্তা, সাংবাদিক ও সেবাদানকারী বেসরকারি সংস্থার প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।


তথ্যসূত্র: http://chtupdate.blogspot.com/